খোঁজ মেলেনি অপহৃত ইবি শিক্ষার্থীর

খোঁজ মেলেনি অপহৃত ইবি শিক্ষার্থীর

ফাইল ছবি

চার দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল মামুন। শনিবার কুষ্টিয়া থেকে বাড়ি ফেরার পথে নিখোঁজ হন তিনি। তার মুক্তিপণ হিসেবে সোমবার রাতে তার শ্বশুরের ফোনে ৪০ হাজার টাকা দাবি করা হয়েছে। একই সঙ্গে টাকা পাঠানোর জন্য একটি বিকাশ নম্বরও দিয়েছে অপহরণকারীরা। টাকা দিতে দেরি করা হলে ভালো হবে না বলেও হুমকি দিয়েছে তারা। আল মামুন বিশ্ববিদ্যালয়ের আল কুরআন অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনার পাশাপাশি বটতৈল এলাকায় একটি মসজিদে ইমামতি করেন। তার গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরার শ্যামনগর থানার কাশিমাড়ী ইউনিয়নের ঘোলা গ্রামে। বাবার নাম সিদ্দিক মোল্লা।

নিখোঁজ মামুনের শ্বশুর আবদুল গফফার বলেন, সোমবার রাত থেকে অপরিচিত ০৯৬৩৮২১৪৬৫৯ এই নম্বর থেকে ফোন করে মুক্তিপণ দাবি করা হচ্ছে। মামুনের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তারা বলেছে, সে অজ্ঞান অবস্থায় আছে। দ্রুত টাকা পাঠালে ছেলেকে ফিরে পাবি। সোমবার এ ঘটনায় নিখোঁজ মামুনের বাবা সিদ্দিক মোল্লা ইবি থানায় একটি জিডি করেছেন। জিডি করার বিষয়টিও অপহরণকারীরা জানতে পেরেছে বলে দাবি করেছে তার পরিবার। সিদ্দিক মোল্লা জানান, ‘জিডি করার পর তারা সোমবার সন্ধ্যায় ফোনে জানিয়েছে, এত অল্প টাকা চেয়েছি তার পরেও জিডি করেছিস কেন? ছেলের থেকে সামান্য ৪০ হাজার টাকা বড় হয়ে গেছে? দ্রুত টাকা পেলে ছেলেকে ফেরত পাবি।’

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ‘বাড়ি ফেরার পথে যশোর থেকে নিখোঁজ হন মামুন। যশোরে থাকা অবস্থায় স্ত্রীর সঙ্গে সর্বশেষ যোগাযোগ হয় তার। মামুনের কাছে একটি ল্যাপটপ ও ১৪ হাজার টাকা ছিল। ইবি থানার ওসি রতন শেখ বলেন, ‘পরিবারের পক্ষ থেকে সোমবার জিডি করা হয়েছে। তদন্ত শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আনিচুর রহমান বলেন, ঘটনা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানিয়েছি। তারা মামুনকে উদ্ধারে কাজ করছে।

 

ad